৩ অক্টোবর, ২০১২

ছাত্রের মায়ের সাথে







মেয়েদের শরীরের প্রতি আমার আকর্ষণ হয়েছে সেই তখন থেকে যখন বুজতে সিখিছি । আজ মেয়েদের দেখলে তাকিয়ে থাকি স্তনের উপর। নয়ত পাছার উপর। অনার্সে ভর্তি হয়েছি বি, এম, কলেজে। মেসে থাকতাম বড়ো হয়েছি হাত খরচের একটা ব্যাপার ছিল। টিউশনি খোঁজ করতে করতে তারেক সারের কল্যাণে পেয়েও গেছি ভাল ফেমেলি মাইনেও বেশি। দু মাস যাবত পরাচ্ছি আর এই দু মাসে ছাত্রর ফেমিলির সাথে ভাল রিলেসন হয়ে গেছে। ৩য় শ্রেণীর ছাত্র ।
সেদিন পরাতে গিয়ে ছিলাম কলিং বেল চাপততেই রাফির মা দরজা খুলে দেয়। আজকের মত সাজতে তাকে আগে কখনও দেখিনি। লাল রংগের জর্জেট সারি লাল জর্জেট ব্লাউজ তার নিচে লাল ব্রা স্পষ্ট দেখা জাচ্ছে।এমনিতেই খুব সুন্দর তার উপর মেকাপ করেছে কপালের মাজে লাল টিপ, ঠোঁটে হালকা লাল লিপিস্তিক । বুজতে পারলাম সে সব কিছু মেচিং করেছে। খুব দারুন লাগছিল তাকে । সে এমন বাবে দারিয়ে ছিল  আমি ভিতরে ডুক্তেই তার ডান বাহুর স্পর্শ হয়। ২৭ বছর হলেও তার রুপ ফিগার পুরো ২০ বসর যুবুতির মত । মনে মনে ভাবলাম নিচের সায়া প্যানটি সবি মনে হয় লাল।তার এই রুপ আর সেক্সি ফিগার দেখে জাইংগার নিচে আমার সোনা বাবাজি রাগে খম খম করছে।  আমি রাফির রুমে গিয়ে বসি। একটু পর সে  চা নাস্তা নিয়ে আসল । টেবিলের উপর রাখল। অ্যান্টি বলেই ডাকতাম । জিজ্ঞাস করলাম।
অ্যান্টি রাফি কোথায়?
ও রাফি! ও তোঁ ওর বাবার সাথে বেরাতে গেছে, শনি বার ফিরবে।
তাহলে আমি এখন যাই?
লাল ঠোঁটে মিষ্টি হাসি দিয়ে বললেন চা টা তোঁ আগে খাও, তারপর যেও।
নিজে আমার হাতে চায়ের কাপ তুলে দিলেন, নিজে ও মিলেন। আমার সামনের সোফায় বসে ছিলেন, আমাদের মাজখানে ছিল একটা টি টেবিল ।সুযোগ পেলেই আমি তার বুকের দিকে তাকাচ্ছি।  চায়ে চুমুক দিতে দিতে জিজ্ঞাস করলেন আমার আজ আর কোনও কাজ আছে কিনা?
না।
তাহলে ভালই হল ওরা বাসায় নেই মন্তা ভাল লাগছিলনা তোমার সাথে গল্প করে সময় পার করা যাবে।
আমার কোনও গার্ল ফ্রেন্ড আছে কিনা?
লজ্জিত বাবে বললাম না নেই।
কাওকে পছন্দ হয়না?
হয়, তবে কখনও বলা হয়না।
কি করে সে?
আমার সাথেই পরে।
আচ্ছা আমাকে দেখিয়ে দিয় আমি তোমার হয়ে বলে দিব।
টাই হবে।
নিচু হয়ে কাপটা রাখার সময় তার জর্জেট সারির আঁচলটা বুকের উপর থেকে সম্পূর্ণ পরে গেল । ডান হাত দিয়ে আঁচলটা তুলে মেলে দরে ঠিক করে দিলেন। খারা খারা দুদ আর ব্লাউজের নিচের স্পষ্ট ব্রা দেখে আমার সোনাটা আবার খারা হয়ে গেল।
তোমরা মেসে কয়জন থাক?
৩/৪ জন।
সে দারিয়ে চায়ের টেরে টা হাতে তুলে নিয়ে গেল। তার পিছনে ফিরে তাকাতেই দবদবে সাদা পিট দেখি। ব্লাউজের পেছনের পাট্টা ছিল মাত্র ৪ ইঞ্চি চওড়া। আর টাই দেখতে পেয়ে ছিলাম। অ্যান্টি ফিরে এসে আবার গল্প সুরু করলেন।সে কি পছন্দ করেন আমি কি পছন্দ করি? বিয়ের আগে কি কি করেছেন? ইত্যাদি ইত্যাদি। অ্যান্টি উটে দারিয়ে দেখ তোঁ আমাকে দেখতে কেমন লাগে বলে নিজেকে গুড়িয়ে দেখাতে লাগলেন। আমি তাকে যতো দেখছি তত শিহরিত হচ্ছি।
আসলে আপনাকে......
বোলো ফ্রি মাইন্ডে বোলো আমি কিছু মনে করবোনা বাণ্ডোবী মনে করতে পাড়ো।
আসলে আপনাকে দেখলে মনেই হয়না আপনার বীয়ে হোয়েছে, বীয়ে না হলে মনে হয় আপনার পিছনে ছেলেদের লাইন থাকতো।
তোমার বান্ধবি মনে করে একটা কথা বলি কিছু মনে করনা। তুমি কি কখনও কোনও মেয়ের শরীর দেখেছ?
না এখনো দেখিনি ।
দেখতে ইচ্ছা হয় না?
হয়।
এইযে আমাকে দেখে নাও বলে হেসে দিলেন।
আমাকে লাল শাড়িতে কেমন মানিয়েছে।
বেস ভাল।
আচ্ছা তাহলে কয়েকটা ছবিতুলে রাখি কি বল? বস আমি ক্যামেরা নিয়ে আসি।
একটু পর ক্যামেরা নিয়ে এসে আমার হাতে দিয়ে বলল নেও আমার কিছু সুন্দর মডেলিং ছবি তুলো। তার পর তিনি মডেলিং দের মত পোঁছ দিতে লাগলেন আর আমি ছবি তুলতে লাগলাম। আবার তিনি বুকের আচল টা ডান হাত দিয়ে পুরো মেলে দরে বললেন তল। আমি উনার কথা শুনে হতবম্ব হয়ে গেলাম। তারপর তিনি সোফার উপর হাঁটু সুয়ে পর্যন্তও কাপর তুলে ছবির জন্য পোঁছ দিলেন । তার এই অবস্তা দেখে আমার ধনটা পূড়ো ফূলে ঊটেছে। ছবি টোলা শেসে কিছু খোণ পর অন্য রুমে গিয়ে আমাকে ডাক দিলেন। আমি গিয়ে দেখি ঊণী একটা টূলেড় উপর দাড়িয়ে । আমাকে বললেন ঐ পট টা ডাও । আমি দেবার পর ঊণী পট টা ঊটীয়ে রেখে বললেন আমি একা নামতে পারবনা। আমকে দরে ণামাও। আমি যেই দড়তে গেলাম ঊণী ঈচ্ছা করে টূলেড় কোণায় পাড়া দিয়ে আমার উপর পরে গেলেণ।ঊণাড় স্তন ডূটী আমার মুখের উপর পোড়েছে আমি হাঁ করে থাকাতে ডান স্তন মুখের ভিতর ডূকে গেছে। আমি থাকতে না পেড়ে ঠোট দিয়ে আস্তে একটা কামোড় দিলাম। মনে করেছি । হয়তো টেড় পাণ্ণী তারপর তিনি আড়ো চেপে ডোড়লেণ । একটু পর ঊটলেণ ।ঊটাড় সময় কোমোড়টা (যেখানে শাড়ীড় কূচী থাকে ) আমার পেটের সাঁতে জোরে গশা দিয়ে ঊটলেণ ।....................................বাকী টূকূ আগামী কাল ৪,১০,১২ তারিখ ।
শফিক
সমাজ কল্যাণ বিভাগ
বি, এম, কলেজ।

কোন মন্তব্য নেই: